Cric GossipCricket News

IND vs NZ: কলকাতায় এসেই মিষ্টি দই ও রসগোল্লা চাইলেন কিউই ক্রিকেটাররা

শনিবারই শহরে পৌঁছে গেছেন কিউই ক্রিকেটাররা। কলকাতায় এসেই লোকাল ম্যানেজারকে দিয়ে আলাদাভাবে মিষ্টি দই ও কে সি দাসের রসগোল্লা আলাদাভাবে অর্ডার দিলেন মিচেল স্যান্টনার। খাওয়া-দাওয়ার পাশাপাশি বই পড়তেও বেশ পছন্দ করেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা।

Advertisement

কলকাতার উপর সমস্ত দেশের ক্রিকেটারদেরই একটা আলাদা ভালোবাসা রয়েছে। এ শহরের ক্রিকেটপ্রেমীরাও বরাবরই বিদেশী ক্রিকেটারদের আপন করে নিয়েছেন। বিদেশি ক্রিকেটাররা যতবারই এদেশে ম্যাচ খেলতে এসেছেন, ততোবারই নতুন করে ভালোবেসেছেন এই শহরটাকে। সেটা প্রমাণ হল আরো একবার। সিরিজের তৃতীয় ম্যাচ খেলতে কলকাতায় এসেই মিষ্টি দই, রসগোল্লার পাশাপাশি গান্ধীজীর বই চাইলেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা।

Advertisement

শনিবারই শহরে পৌঁছে গেছেন কিউই ক্রিকেটাররা। কলকাতায় এসেই লোকাল ম্যানেজারকে দিয়ে আলাদাভাবে মিষ্টি দই ও কে সি দাসের রসগোল্লা আলাদাভাবে অর্ডার দিলেন মিচেল স্যান্টনার। খাওয়া-দাওয়ার পাশাপাশি বই পড়তেও বেশ পছন্দ করেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা। ভারতকে নিয়ে জানার আগ্রহ তাদের বরাবরই প্রবল। এদিন লোকাল ম্যানেজারের কাছে একই সাথে আটখানা বই চাইলেন তারা।

Advertisement

মহাত্মা গান্ধীর ‘মাই এক্সপেরিমেন্টস উইথ ট্রুথ’ এই বইটি কিনলেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। মার্টিন গাপটিল সুনীল গাভাসকরের লেখা ‘রানস অ্যান্ড রুইনস’ বইটি এবং অ্যালেক্স ফার্গুসনের অটোবায়োগ্রাফি চাইলেন। নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেট টিমের ফিজিও স্পোর্টস মেডিসিনের উপরে ভারতীয় লেখকের লেখা একটি বই চান। এছাড়াও অরবিন্দ আদিজারের লেখা ‘হোয়াইট টাইগার’ বইটিও ছিল কিউয়ি ক্রিকেটারদের তালিকায়।

রাজারহাটের একটি বিলাসবহুল হোটেলের ৩১ তলায় আলাদা ঘরে কিউরি ক্রিকেটারদের থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গান-বাজনা করতেও বেশ পছন্দ করেন তারা। নিজেদের পছন্দের বাদ্যযন্ত্র সঙ্গে করে নিয়ে এসেছেন কিউইরা। এখানেই গান-বাজনায় মেতে উঠেছেন উইলিয়ামসনরা।

Related Articles

Back to top button