Cricket NewsInternational Cricket

Shaheen Shah Afridi: বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানকে অন্যায় ভাবে বল ছুড়ে মেরে আইসিসির শাস্তির মুখে পড়লেন পাক ক্রিকেটার শাহীন শাহ আফ্রীদি

সজোরে বলের আঘাত পেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন বাংলাদেশি ওই ক্রিকেটার। তার ফলেই আইসিসি শাস্তি বিধানের আওতায় আসেন শাহীন শাহ আফ্রীদি।

Advertisement

প্রথমবারের মতো ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের শাস্তির মুখে পড়লেন পাক ক্রিকেটার শাহীন শাহ আফ্রীদি। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শেষ করে সম্প্রতি পাকিস্তান বাংলাদেশ সফর করছে। এই সফরে তারা তিনটি টি-টোয়েন্টি এবং দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে। ইতিমধ্যে টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে জয়লাভ করে সিরিজ নিজেদের নামে করে নিয়েছে পাকিস্তান। প্রথম দু’টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ লজ্জাজনকভাবে পরাজিত হয়ে বাংলাদেশ টানা ৭টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে পরাজিত হওয়ার লজ্জাজনক রেকর্ড গড়েছে। আজ টি-টোয়েন্টি সিরিজের তৃতীয় তথা শেষ ম্যাচ খেলার উদ্দেশ্যে মুখোমুখি হবে পাকিস্তান বাংলাদেশ।

Advertisement

এদিকে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচ শাস্তির মুখে পড়েছেন পাকিস্তানের অন্যতম সেরা পেস বোলার শাহীন শাহ আফ্রীদি। আইসিসি-র তরফে একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আইসিসি কোড অব কন্ডাক্টের লেবেল ১ অপরাধ করেছেন আফ্রিদি। যদিও ম্যাচ চলাকালীন সময়ে নিজের অপরাধ স্বীকার করেছেন শাহীন শাহ আফ্রীদি। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে তার প্রথম বলে ছক্কা হাঁকান বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান আফিফ হোসেন। দ্বিতীয় বলে স্টেট ড্রাইভ খেলেন বাংলাদেশী ওই ব্যাটসম্যান। তিনি সুরক্ষা রেখার ভেতরে দাঁড়িয়েই স্টেট ড্রাইভ খেলেছিলেন। এমনকি রান নেওয়ার কোনো প্রচেষ্টা করেননি বাংলাদেশী ওই ক্রিকেটার। কিন্তু তারপরেও পাকিস্তানি ক্রিকেটার শাহীন শাহ আফ্রীদি বল ছুড়ে মারেন আফিফ হোসেনের পায়ে।

Advertisement

সজোরে বলের আঘাত পেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন বাংলাদেশি ওই ক্রিকেটার। তার ফলেই আইসিসি শাস্তি বিধানের আওতায় আসেন শাহীন শাহ আফ্রীদি। এটি নিজের ক্রিকেট জীবনের প্রথম অপরাধ হওয়ায় শুধুমাত্র ম্যাচের ১৫% অর্থ জরিমানা করা হয় তার। ম্যাচ রেফারি নিয়ামুর রশিদ তাঁকে যে জরিমানা করেছেন তা মেনে নিয়েছেন আফ্রিদি। তাছাড়া নিজের ভুল স্বীকার করে নিয়েছেন পাকিস্তানি এই ক্রিকেটার। এমনকি বাংলাদেশ ওই ব্যাটসম্যানের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন তিনি। তবে আইসিসির জরিমানার হাত থেকে রক্ষা পাননি পাকিস্তানি ক্রিকেটার শাহীন শাহ আফ্রীদি।

Related Articles

Back to top button