Cricket

খুব তাড়াতাড়ি মাঠে ফিরবেন বিরাটরা, জানাল BCCI

তৃতীয় দফার লকডাউন শেষ হচ্ছে ১৭ ই মে। চতুর্থ দফার লকডাউনে সরকার কি গাইডলাইন দেয় তার উপর নির্ভর করছে ভারতীয় দলের ক্রিকেটারদের মাঠে নামা। প্রায় দু’মাস বাড়িতেই বসে রয়েছেন সমস্ত ক্রিকেটাররা তাই তাদের ফিটনেস নিয়ে সন্দিহান ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। খুব দ্রুত তাদেরকে মাঠে প্রাকটিস করাতে চাই বিসিসিআই কিন্তু ১৮ ই মে সরকারের গাইডলাইন দেখে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে চাই বোর্ড।

এই লকডাউন পর্বে ভারতীয় ক্রিকেটারদের উপর, প্রতিদিনের ভিত্তিতে একটি অ্যাপ ব্যবহার করে নজর রাখছে ক্রিকেট বোর্ড অফ কন্ট্রোল (বিসিসিআই)। খেলোয়াড়, কোচ এবং সাপোর্ট স্টাফদের সহায়তার জন্য অ্যাপটি তৈরি করা হয়েছে। তাদের এই অ্যাপটির মাধ্যমে সরবরাহ করা হচ্ছে, পৃথক এবং দলের পারফরম্যান্স, দক্ষতা-সুনির্দিষ্ট দ্বৈত কার্যকলাপ এবং বারবার চোট পাওয়ার কারণগুলির ভিডিও। অ্যাপে এইসবের একটি ডেটাবেস রয়েছে। অ্যাপটির লক্ষ্য প্লেয়ারদের শারীরিক ও মানসিকভাবে ফিট রাখা। এতে চার-পর্যায়ের পরিকল্পনার সাথে অনলাইন প্রশিক্ষণ সেশন, চ্যাট রুম এবং প্রশ্নপত্র রয়েছে।

বিসিসিআইয়ের কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধূমল অ্যাপটির কার্যকারিতা ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি বলেছেন, “এটি ধাপে ধাপে প্রবাহিত হয়েছে এবং সচিব (জয় শাহ) প্রতিদিন অগ্রগতি পর্যালোচনা করছেন।” বিসিসিআইয়ের কোষাধ্যক্ষ আরও জানিয়েছেন। “আমরা যা করার চেষ্টা করেছি সেই প্রক্রিয়াটি বিভিন্ন পর্যায়ে বিভক্ত করা। আমাদের ক্রিকেটারদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কিত দিকগুলি, অনলাইনে পেশাদার সহায়তা, ডায়েট পর্যবেক্ষণ, ফিটনেস সেশন ইত্যাদি প্রতিদিন ভিত্তিতে পরিচালিত হচ্ছে।”

ধূমল আরও প্রকাশ করেছেন যে লকডাউন শেষ হয়ে গেলে আউটডোর প্রশিক্ষণ হবে। ততক্ষণ পর্যন্ত কীভাবে জিনিসগুলির চারপাশে কাজ করা যায় তার ধারাবাহিক মূল্যায়ন হবে। তিনি বলেছিলেন, “পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এবং অনুমতি পেলে আমরা স্থানীয় স্টেডিয়ামগুলিতে দক্ষতা ভিত্তিক প্রশিক্ষণ দিয়ে শুরু করব। আমরা লকডাউন নিয়মে শিথিল হওয়ার অপেক্ষায় আছি তারপর প্রোগ্রামটির গতিশীলতা পর্যালোচনা করব, যাতে ক্রিকেট আবার শুরু হলে খেলোয়াড়রা মাঠে ফিরতে পারে।”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button