Cricket NewsIndian Cricket Team

‘মাহির সেই ছক্কা ভোলা যাবে না’, বিশ্বকাপ জয়ের ১০ বছর পর অনুভূতির কথা জানালেন যুবরাজ

ভারতের ২০১১ সালের বিশ্বকাপ জয়ী বীররা মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে ভারতের ঐতিহাসিক জয়ের দশম বার্ষিকী উদযাপন করে টুইটার এবং ইনস্টাগ্রাম জুড়ে। যুবরাজ সিং থেকে হরভজন সিং, বীরেন্দ্র সহবাগ সকলেই ১০ বছর আগে বিশ্বকাপ জয়ের অনুভূতি প্রকাশ করে স্মৃতি রোমন্থন করেন। ঠিক ১০ বছর আগে ২এপ্রিল, ২০১১ তারিখে ভারত ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে পরাজিত করে ঘরের মাটিতে ২৮ বছর পর ওয়ানডে বিশ্বকাপ তুলে নেয়। এমএস ধোনি একটি ছয় দিয়ে ম্যাচ শেষ করেছিলেন, কোটি কোটি মানুষের মধ্যে উন্মাদনা সৃষ্টি করেছিলেন।

ইনস্টাগ্রামে আপলোড করা একটি ভিডিওতে যুবরাজ বলেন “এপ্রিল ২, ২০১১- একটি তারিখ যা ইতিহাস তৈরি হয়েছে! জাতীয় গর্বের অনুভূতি বর্ণনা করার জন্য কোন ভাষা নেই। আমরা সবাই আমাদের মহান কোচ গ্যারি কার্স্টেনের কাছে কৃতজ্ঞ, যিনি আমাদের বিশ্বাস করতে বাধ্য করেছিলেন যে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য আমাদের যা প্রয়োজন তা আমাদের কাছে আছে।” তিনি আরও বলেন, “আমরা সবাই আমাদের দেশের জন্য এই বিশ্বকাপ জিততে চেয়েছিলাম। মাস্টার ব্লাস্টার সচিন স্যার দশকের পর দশক ধরে প্রত্যাশার বোঝা বহন করেছেন। এটি তাঁর সেটা শেষ বিশ্বকাপ ছিল।”

বিশেষভাবে ধোনির কথা উল্লেখ করে যুবরাজ বলেন, “মাহির সেই ছক্কা ভোলা যাবে না। আমরা খুচরো রান নিয়েও সেই ম্যাচটি জিততাম। কিন্তু ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে নুয়ান কুলশেখরকে লং অনের উপর দিয়ে ছয় মেরে ম্যাচ জেতার মধ্যে রয়েছে আলাদা সম্মান ও মর্যাদা।” এই বাঁ-হাতি সাবেক ব্যাটসম্যান আরেকটি ভিডিও আপলোড করে শিরোনামে লেখেন: “বড় মুহূর্ত, বড় স্মৃতি! এক দশকের স্বপ্ন পূরণের #Throwback। ভারতের প্রাক্তন ক্রিকেটার বীরেন্দ্র সহবাগও টুইটারে এই অনুষ্ঠানের দশম বার্ষিকী উদযাপন করেছেন। “এপ্রিল ২: ১০ বছর আগে, জীবনের একটি সেরা মুহূর্ত,” সেহওয়াগ লিখেছেন।

ভারত এখনো সেই দিন থেকে বিশ্বকাপ জিততে পারেনি। ২০১৪ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠলেও শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে যায়। ২০১৩ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ২০১১ সালের বিশ্বকাপ জয়ের পর ভারতের একমাত্র আইসিসি ট্রফি।

আরও পড়ুন

Back to top button