IPL 2020Cricket

ফাইনালে মুখোমুখি দিল্লি-মুম্বই

আইপিএল ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করল দিল্লি ক্যাপিটালস। দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে ১৭ রানে হারিয়ে ফাইনালে উঠল শ্রেয়াস আইয়ারের দল। রবিবার দিল্লির দেওয়া ১৯০ রানের লক্ষে খেলতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৭২ রানে ইনিংস শেষ হয় সানরাইজার্স হায়দরাবাদের। মঙ্গলবারের ফাইনালে দিল্লি ক্যাপিটালসের প্রতিপক্ষ চারবারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বই ইন্ডিয়ান্স।

আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দুর্দান্ত শুরু করে দিল্লির দুই ওপেনার। মার্কাস স্টোইনিস এবং শিখর ধাওয়ানের ব্যাট বড় রান করার আভাস দেয় দিল্লি। প্রথম উইকেটে স্টোইনিস-ধাওয়ান দু’জন মিলে তোলেন ৮৬ রান। রশিদ খানের বলে বোল্ড হয়ে ফিরে যাওয়ার আগে স্টয়নিস করেন ২৭ বলে ৩৮ রান। তবে অন্য প্রান্তে রানের গতি সচল রাখেন ধাওয়ান। তিনি করেন ৫০ বলে ৭৮ রান করে ফিরে যান এই বাঁহাতি। এরপর দলের হাল ধরেন অধিনায়ক শ্রেয়াস এবং হেটমায়ার। শ্রেয়াস করেন ২১ রান। আর হেটমেয়ারের ২২ বলে ৪২ রানের ক্যামিও ইনিংসে শেষ পর্যন্ত ৩ উইকেটে ১৮৯ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর করে দিল্লি।

জবাব দিতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি হায়দরাবাদের। শুরুতেই ফিরে যান অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। ব্যক্তিগত ২ রানে রাবাদার বলে বোল্ড হন তিনি। এরপর দলের হাল ধরেন মনীশ পান্ডে এবং প্রিয়ম গর্গ। দু’জনে এগিয়ে নেন দিল্লির স্কোর। তবে ১৭ রানে আউট হন প্রিয়ম। ২১ করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন মনীশ। এরপর উইলিয়ামসনের ব্যাটে ভর করে এগোতে থাকে হায়দরাবাদ।

এক প্রান্ত আগলে রেখে জয়ের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন এই কিউই ব্যাটসম্যান। কিন্তু ৬৭ রানে রাবাদার হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। এরপর হঠাৎই ছন্দপতন নেমে আসে হায়দরাবাদ শিবিরে। শুরু হয় রাবাদা ম্যাজিক। আব্দুল সামাদের ব্যাটে কিছুটা আশা জিইয়ে থাকলেও তা ফিকে করে দেন রাবাদা। মাত্র ১৬ বলে ৩৩ রান করে রাবাদার বলে বিদায় নেন তিনি। এরপর ওই ওভারে আরো দুটি উইকেট তুলে নেন রাবাদা। ফলে জয়ের স্বপ্ন শেষ হয়ে যায় ডেভিড ওয়ার্নারদের।

শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ১৭২ রানে থামতে হয় তাদের। দিল্লির হয়ে রাবাদা নেন ৪টি উইকেট। আর স্টোইনিস নেন ৩টি উইকেট। ব্যাট-বলে দারুণ পারফরম্যান্স করে ম্যাচের সেরার পুরস্কার জিতে নেন স্টোইনিস।

Related Articles

Back to top button