IPL 2020Cricket

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে আরসিবিকে হারিয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে হায়দরাবাদ

দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে হায়দরাবাদের মুখোমুখি দিল্লি

এবারও আইপিএলে শিরোপা জেতা হলো না রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর অধিনায়ক বিরাট কোহলির। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে এলিমিনেটর ম্যাচে হেরে আরসিবির এবারের আইপিএল অভিযান শেষ হয়ে গেল।

শুক্রবার এলিমিনেটরে কোহলিদের ৬ উইকেটে হারিয়ে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার নিশ্চিত করল ডেভিড ওয়ার্নারের সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে রবিবার দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে দিল্লি ক্যাপিটালসের মুখোমুখি হবে হায়দরাবাদ।

এর আগে আবুধাবি স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় বেঙ্গালুরু। ১৫ রানের মধ্যে দুই ওপেনার কোহলি ও পাডিক্কেলকে প্যাভিলিয়নে ফেরান হায়দরাবাদের বোলার জেসন হোল্ডার। কোহলিকে ৬ আর পাডিক্কেলকে মাত্র ১ রানে আউট করেন এই ক্যারিবিয়ান পেসার।

দলের হাল ধরেন অ্যারন ফিঞ্চ আর অভিজ্ঞ এবি ডি ভিলিয়ার্স। এদিন শুরুটা ভাল করলেও ৩০ বলে ৩২ রান করে শাহবাজ নাদিমের বলে আউট হন ফিঞ্চ। এক প্রান্ত ধরে লড়াই চালিয়ে যান অভিজ্ঞ ডিভিলিয়ার্স। তবে অন্যদিকে একের পর এক উইকেট হারাতে থাকে আরসিবি। মঈন আলীকে নিয়ে জুটি বাঁধার সুযোগই পাননি ভিলিয়ার্স। উইকেটে নেমেই শূন্য রানে রানআউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। তাও এই রানআউটটা ছিল নো বলে। রাশিদ খান ডায়রেক্ট থ্রো তে মঈন আলীকে আউট করেন।

হায়দরাবাদ বোলারদের দাপটে বাকি সব ব্যাটসম্যানদের মধ্যে কেবল মহম্মদ সিরাজ দুই অংকের ঘরে পৌঁছেছেন। তাও মাত্র ১০ রান। বাকি দুই ব্যাটসম্যান শিভম দুবে (৮), ওয়াশিংটন সুন্দর (৫) রানে আউট হন।

১৮তম ওভারে এসে শেষপর্যন্ত ডি ভিলিয়ার্স বোল্ড হন নটরাজের বলে। ৪৩ বলে ৫ বাউন্ডারিতে ৫৬ রান করে এবি ডিভিলিয়ার্স ফিরলে আরসিবির সমর্থকরা আরো বেশি হতাশ হয়ে পরে। ডিভিলিয়ার্স থাকলে আরসিবি আরও ১০-২০ রান বেশি করতে পারতো। কিন্তু নটরাজনের নিখুঁত ইয়র্কার সামলানোর কোনো দিশা খুঁজে পাননি তিনি। তবে দুই টেল-এন্ডার সিরাজ ৯ রানে ও নবদীপ সাইনি ৯ রানে অপরাজিত থাকলে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৩১ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় আরসিবি।

হায়দরাবাদের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল হন জেসন হোল্ডার। ৪ ওভারে ২৫ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নেন তিনি। ৩৩ রান দিয়ে ২টি উইকেট পান এন নটরাজ।

জবাবে ১৩২ রানের সহজ টার্গেটের লক্ষ্যে নামলে শুরুটা ভালো হয়নি হায়দরাবাদের। শ্রীবৎস গোস্বামীকে শূন্য রানে ফেরান মহম্মদ সিরাজ। ফর্মে থাকা হায়দরাবাদ অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকেও বেশিক্ষণ টিকে থাকতে দেননি সিরাজ। তাঁকেও ১৭ রানে ফেরান সিরাজ। যদিও ওয়ার্নারের এই আউটটা নিয়ে অনেক প্রশ্ন থেকেই যায়‌।

এরপর শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তোলেন মনীশ পান্ডে ও কেন উইলিয়ামসন। মনীশ ২১ বলে ২৪ রান করে অ্যাডাম জাম্পার বলে আউট হন। অপরপ্রান্তে হাল ধরে রাখেন উইলিয়ামসন।

এর মাঝে প্রিয়াম গর্গকে (৭) হারালেও উইলিয়ামসন-হোল্ডার জুটি জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে। উইলিয়ামসন ৪৪ বলে ৫০ রানে অপরাজিত থাকেন। অপরপ্রান্তে হোল্ডার অপরাজিত থাকেন ২০ বলে ২৪ রান করে। শেষ ওভারে জয়ের জন দরকার ছিল ৯ রান। হোল্ডার চতুর্থ ও পঞ্চম বলে পরপর ২টি বাউন্ডারি মেরে ১ বল বাকি থাকতেই দলকে ম্যাচ জেতান। এই ম্যাচে ব্যাট হাতে ঠান্ডা মাথায় ৫০ রানের অপরাজিত দায়িত্বশীল ইনিংস খেলে ম্যাচের সেরা হন উইলিয়ামসন।

আরসিবির বোলারদের মধ্যে এদিন দারুণ বল করেন অ্যাডাম জাম্পা, যুজবেন্দ্র চাহাল ও মহম্মদ সিরাজ। ৪ ওভারে ১২ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন জাম্পা। ৪ ওভারে ২৪ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন তাহার এবং ৪ ওভারে ২৮ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন মহম্মদ সিরাজ। তবে ভাল বল করেও দলকে জেতাতে ব্যর্থ তারা।

Related Articles

Back to top button